দেশ প্রায় শতভাগ বিদ্যুতের আওতায়

Shakil Shahriar
জুন ১৪, ২০২১ ১:৪১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

চলতি বছরেই শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন হবে। ইতিমধ্যেই ৯৯ দশমিক ৫ ভাগ মানুষের কাছে বিদ্যুৎ সেবা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। যেটুকু বাকি আছে তা চলতি বছরের মধ্যেই সম্পন্ন হবে। শতভাগ বিদ্যুতায়নের লক্ষে বিদ্যুৎ বিভাগ জোরেসোরেই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০৪১ সালের মধ্যে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য সামনে রেখে সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনসহ বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ও ব্যবস্থাপনায় ই আর পি, স্ক্যাডা, স্মার্ট গ্রিড, স্মার্ট প্রিপেইড মিটার, ভূগর্ভস্থ ক্যাবল ব্যবস্থা, ভূগর্ভস্থ উপকেন্দ্র, জি আই ট্রান্সফরমার সংযোজনের উদ্যোগ নিয়েছে। এসব প্রকল্পের কাজ এখন চলমান রয়েছে। দেশীয় জ্বালানি ব্যবহারে সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে।
এজন্য বাপেক্সকে শক্তিশালী করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কয়লা ও গ্যাস থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রণোদনা প্রদান অব্যাহত রয়েছে। আগামী দিনে বিদ্যুৎ উৎপাদনের অন্যতম প্রধান উৎস হতে পারে নারায়নযোগ্য জ্বালানি। এছাড়া বায়ু বিদ্যুৎ, ওশান রিনিউবল এনার্জি, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ, সৌর বিদ্যুৎ ইত্যাদি আগামীর জ্বালানি মিশ্রণে ব্যাপক অবদান রাখবে।
পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেন জানিয়েছেন, এখন ৯৯ দশমিক ৫ ভাগ মানুষের কাছে সরকার বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছে। আমরা এখন শতাভাগ বিদ্যুতায়নের দ্বার প্রান্তে আছি। অল্প দিনের মধ্যেই আমাদের অঙ্গীকার পূরণ হবে। দুর্গম পাহাড়ি ও চর এলাকাতেও আমরা মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছি। যেখানে লাইনের বিদ্যুতের ক্যাবল তার টানা সম্ভব হয়নি, সেখানে সৌর বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, বিদ্যুৎ খাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সূদুরপ্রসারী পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। টেকসই এনার্জি কীভাবে পাওয়া যাবে তা নিয়ে কাজ চলছে। বিদ্যুতের সরবরাহ মান উন্নত করতে কাজ চলছে। আগে আমরা একধরনের জ্বালানি ব্যবহার করতাম। এখন মিক্স ফুয়েল ব্যবহার করে কাজ চলছে। পাশের দেশ থেকে বিদ্যুৎ আমদানির পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে।
জানা গেছে, বর্তমানে দেশে ১৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে। শিল্পে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে কিছু সমস্যা আছে। সিস্টেম লস এখন সিঙ্গেল ডিজিটে নেমে এসেছে। গ্রিড সাব স্টেশন ২৬ হাজার মেগাওয়াট ক্ষমতা আছে কিন্তু সব জায়গায় বিদ্যুৎ দেওয়া যাচ্ছে না। ২০২৪ সাল নাগাদ এই সমস্যা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান।